শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন

শাহরাস্তির পশ্চিম উপলতা গ্রামে একরাতে ৪ ঘরে সিদঁকেটে চুরি, স্বপন চোরার অত্যাচারে অতিষ্ঠ্য গ্রামবাসী

মেঘনার আলো ২৪ ডেস্ক / ৮৮০ বার পঠিত
আপডেট : শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০২৩, ৯:০০ অপরাহ্ণ

 

স্টাফ রিপোটার:

শাহরাস্তি পৌরসভাধীন পশ্চিম
উপলতা গ্রামে একরাতে ৪ টি ঘরে সিদঁকেটে চুরি
সংঘটিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। দীর্ঘদিন যাবৎ এ
এলাকায় স্থানীয় স্বপন চোরার অত্যাচারে অতিষ্ঠ্য হয়ে
পড়েছে গ্রামবাসী। এলাকায় বেশ কয়েকবার শার্লিস
বৈঠক করে ও স্বপন চোরাকে সংশোধন করা সম্ভব হয়নি।
গত ১৮ ই অক্টোবর পৌরসভাধীন ১ নং ওয়ার্ডের পশ্চিম
উপলতা নশাগাজী ফকির বাড়ীর সৌদি প্রবাসী আনোয়ার
হোসেন এর ঘরে রাত ৩ ঘটিকায় সিদঁকেটে ঘরে প্রবেশ
করে সংর্ঘবদ্ধ চোরের দল। এ সময় চোরের দল প্রবাসীর ঘরে
রক্ষিত আলমিরা থেকে নগদ ৫ লক্ষ টাকা, মোবাইল সেট
নিয়ে পালিয়ে যায়। প্রবাসী আনোয়ার হোসেন তার
বাড়ীতে বিল্ডিং তৈরী করার জন্য ব্যাংক হতে টাকা উঠিয়ে
ঘরে এনে রেখেছিলেন বলে তার স্ত্রী ফিরোজা বেগম
জানান। তিনি বলেন, তার ঘরে কোন পুরুষ লোক না থাকায়
চোরের দল সিদঁকেটে ঘরে ঢুকে এ সর্বনাশ করেছে। ঘরে
তার বৃদ্ধ মা ফাতেমা বেগম (৬০) ও তার ৪ কন্যা আফরোজা
আক্তার তাহমিনা, আফসানা আক্তার সীমা, আইরিন আক্তার
রিয়া ও আনজুম আক্তার নিমা সহ ঘরে ঘুমাচ্ছিলেন। চোরের
উপস্থিতি টের পেয়ে তারা ডাক-চিৎকার শুরু করলে চোরের দল
দৌড়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। তিনি বলেন চোরের দল রশি
দিয়ে ঘরের দরজায়, পাশ^বর্তী বিভিন্ন ঘরের দরজায় রশি
দিয়ে দরজা বাইরে থেকে আটকিয়ে রাখা হয়েছিল, যেন
কেউ ঘর থেকে বের হয়ে কেউ তাদের সহযোগিতা করতে না
পারে। তিনি জোর গলায় বলেন, এ চুরির ঘটনা পাশ^বর্তী
নাজির আহম্মেদ এর পুএ স্বপন চোরার কাজ। আর এ কাজে

তাকে সহযোগিতা করেন তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম ও মা
রাবেয়া বেগম। এছাড়া ও একইদিন চোরের দল ১ নং
ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর হারেছ আহম্মেদ, একই
গ্রামের সোলেমান, ও দেলোয়ার হোসেনের ঘরে
সিদঁকেটে চুরির ঘটনা ঘটে। এ সময় তাদের ঘর থেকে
মুল্যবান জিনিসপএ লুটে নেয়। পশ্চিম উপলতা গ্রামের
মো: বিল্লাল হোসেন, মো: কামরুল হাসান, মো: রুহুল
আমিন, কামাল হোসেন, মারফ হেসেন, মোশারফ হোসেন
মোবারক হোসেন ও আবদুল হান্নান জানান, এ গ্রামে
স্বপন চোরার অত্যাচারে আমরা অতিষ্ঠ্য হয়ে পড়েছি। বেশ
কয়েকবার আমরা শার্লিস বৈঠক করে ও তাকে শাস্তির
আওতায় আনা হয়েছিল । সে কোনদিন চুরি করবে না
মর্মে অঙ্গীকার করলে ও সংশোধন হয়নি। প্রবাসী
আনোয়ার হোসেন বিল্ডিং নির্মান করবে বলে ব্যাংক
থেকে টাকা উওোলন করে ঘরে রেখেছিল, সে টাকাও চুরি
হয়ে গেল। বিষয়টি আমরা স্থানীয় কাউন্সিলরকে অবহিত
করেছি, সন্ধ্যায় আমরা স্থানীয়ভাবে বসে সিদ্ধান্তের
ভিওিতে পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
আমরা স্থানীয় গ্রামবাসী উপজেলা প্রশাসন ও
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সুদৃষ্টি কামনা করছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

এক ক্লিকে বিভাগের খবর